কোটি টাকার বিনিয়োগ পেল স্টার্টআপ ক্লুডিও

ইটেরেটিভ তাদের বিনিয়োগকৃত স্টার্টআপগুলোকে অংশীদার, অন্যান্য ব্যবসায়িক নেতা, শিল্প বিশেষজ্ঞ ও বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ তৈরিতে সহযোগিতা করে।

ইটেরেটিভ এই দফায় ৩৩০টির বেশি আবেদন পেয়েছে। বাছাই করতে গিয়ে ১৩০ ঘণ্টার বেশি সাক্ষাৎকার নিয়ে ১০টি প্রতিষ্ঠানকে চূড়ান্ত করেছে। এর মধ্যে বাংলাদেশের ক্লুডিও একটি। দেশের ট্যুরিজমভিত্তিক স্টার্টআপ গো জায়ান গত বছর ইটেরেটিভের বিনিয়োগ পেয়েছিল।

ইটেরেটিভের এবারের গ্রীষ্মকালীন ব্যাচে বিনিয়োগ পাওয়া অন্য প্রতিষ্ঠানগুলো হলো ফিলিপাইনের একাডারেনা, শিপমেটস, সিঙ্গাপুরের বটসিংক, ফ্রিজ, জিপে, রিডা, মালয়েশিয়ার হওকর, সুপাবাজা এবং ইন্দোনেশিয়ার জিডটকেয়ার।

২০১৯ সালে কিশোয়ার হাশেমী ও তৌহিদুল তিশাদ মিলে গড়ে তোলেন ক্লুডিও। কিশোয়ার প্রথম আলোকে বলেন, গত মাসে তাঁরা ইটেরেটিভে আবেদন করেছিলেন। কয়েক দফার সাক্ষাৎকারের পর তাঁদের নির্বাচিত করে ইটেরেটিভ। নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য এই বিনিয়োগ তাঁদের সাহায্য করবে।

ক্লুডিও সম্পর্কে কিশোয়ার হাশেমী বলেন, ক্লুডিও হচ্ছে ক্লাউড কিচেন। তাঁরা খাবারের ব্যবসা শুরু এবং তার পরিসর বাড়াতে সহযোগিতা দিয়ে থাকেন। রেস্টুরেন্টগুলো অপারেট করতে এবং কিচেন থেকে শুরু করে নানা অবকাঠামোগত সহযোগিতা দিয়ে থাকে ক্লুডিও।

ক্লুডিওর এই সহপ্রতিষ্ঠাতা বলেন, তাঁদের প্রতিষ্ঠানে একই সময়ে অনেকগুলো ব্র্যান্ডের খাবার রান্না হয়। এতে রেস্টুরেন্টগুলোর খরচ ভাগাভাগি হয়ে সবার জন্য লাভজনক হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘ক্লুডিওতে খাবার অর্ডার করা যাবে। তবে আমরা মূলত কারখানার মতো। আমরা এমন এক সিস্টেম তৈরি করছি, যেখানে রেস্টুরেন্টগুলোর ব্যবসা বাড়াতে নানা সাপোর্ট দেওয়া হবে।’ক্লুডিওর সঙ্গে এখন সাতটি রেস্টুরেন্ট আছে। আগামী তিন মাসে ১৫ এবং বছরে তা ৩০ হবে বলে আশা করছে প্রতিষ্ঠানটি।

Source: Prothomalo

%d bloggers like this: