খুলনায় ২৪ ঘণ্টায় ৪ করোনা হাসপাতালে মৃত্যুর ঘটনা ঘটেনি

খুলনা নগরে দুটি বেসরকারিসহ পাঁচটি করোনা হাসপাতালের মধ্যে চারটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় কোনো মৃত্যুর ঘটনা ঘটেনি। এক সঙ্গে পাঁচটি করোনা হাসপাতাল চালু হওয়ার পর এটাই মৃত্যুহীন প্রথম দিন। তবে একই সময়ে অপর একটি হাসপাতালে করোনায় চারজনের মৃত্যু হয়েছে, যা গত এক মাসের মধ্যে হাসপাতালগুলোতে সর্বনিম্ন মৃত্যুর রেকর্ড।

গতকাল শুক্রবার সকাল আটটা থেকে আজ শনিবার সকাল আটটা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় খুলনা নগরের হাসপাতালগুলোর প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। আগের দিন তিনটি হাসপাতালে আটজনের মৃত্যু হয়েছিল। তার আগের দিন ৪টি হাসপাতালে মারা যান ১৫ জন। হাসপাতালগুলোতে করোনা রোগীর মৃত্যুর সঙ্গে সঙ্গে কমেছে রোগীর চাপও। ১৫ দিন আগেও যেখানে হাসপাতালগুলোতে কোনো শয্যা খালি ছিল না, সেখানে প্রতিটি হাসপাতালেই এখন বেশ কিছু শয্যা খালি পড়ে আছে। তবে চাহিদা রয়েছে আইসিইউ শয্যার। দুই সরকারি হাসপাতালে থাকা ৩০টি আইসিইউ শয্যার কোনোটিই খালি পড়ে থাকছে না।

হাসপাতালগুলোর দৈনিক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিচতলায় অবস্থিত ২০০ শয্যার করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে চারজন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। আর শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতাল, ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট খুলনা সদর (জেনারেল) হাসপাতাল, বেসরকারি গাজী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও বেসরকারি সিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কোনো রোগীর মৃত্যু হয়নি। এ ছাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে কোনো রোগী মারা যাননি।

জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্য মতে, খুলনা মেডিকেলে যে চারজন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে, তাঁরা সবাই খুলনা জেলার। এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনায় ৫৯৫ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১৪৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার মাত্র ২৪ দশমিক ৩৬ শতাংশ। এর আগের দিন শনাক্তের হার ছিল ২৩ শতাংশ।

হাসপাতালগুলোতে রোগী ভর্তির তথ্য থেকে দেখা গেছে, আজ সকাল পর্যন্ত ২০০ শয্যার ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালে রোগী ভর্তি আছেন ১৩৩ জন। এর মধ্যে করোনা রোগী আছেন ৫০ জন ও করোনা উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসাধীন ৪৯ জন। হাসপাতালে থাকা ২০টি এইচডিইউতে রোগী ভর্তি আছেন ১৪ জন। আর ২০টি আইসিইউ শয্যার কোনোটি ফাঁকা নেই। এদিকে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট খুলনা সদর (জেনারেল) হাসপাতালে (৮০ শয্যার করোনা ইউনিট) বর্তমানে করোনায় আক্রান্ত রোগী ভর্তি রয়েছেন ৪০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় এখানে চারজন করোনা রোগী ভর্তি হয়েছেন।

খুলনার শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালে ১০টি আইসিইউসহ ৪৫টি শয্যা নিয়ে করা হয়েছে করোনা ইউনিট। এই করোনা ইউনিটে বর্তমানে রোগী ভর্তি আছেন ৪২ জন। তবে কোনো আইসিইউ শয্যা খালি নেই। গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে দুজন করোনা রোগী ভর্তি হয়েছেন। ছাড়পত্র নিয়ে বাড়ি গেছেন একজন।

বেসরকারি গাজী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ১৫০ শয্যার করোনা ইউনিটে বর্তমানে রোগী ভর্তি আছেন ৭০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় রোগী ভর্তি হয়েছেন ১১ জন ও ছাড়পত্র পেয়েছেন ৯ জন। খুলনা সিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রয়েছে ৯০টি শয্যা। বর্তমানে সেখানে রোগী ভর্তি আছেন ৬১ জন। ২৪ ঘণ্টায় ৯ জন ভর্তি ও ২ জন ছাড়পত্র নিয়েছেন।

Source: Prothomalo

%d bloggers like this: