দুর্গাপুরে বিশ্ব যক্ষা দিবস পালিত

নির্মলেন্দু সরকার বাবুল, দুর্গাপুর(নেত্রকোনা): নেত্রকোনার দুর্গাপুরে ‘‘নেতৃত্ব চাই যক্ষা নির্মুলে-ইতিহাস গড়ি সবাই মিলে” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও ডেমিয়েন ফাউন্ডেশান এর আয়োজনে বিশ্ব যা দিবস পালন করা হয়েছে।
এ উপলক্ষে শনিবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে একটি র‌্যালি পৌরশহর প্রদণি করে হাসপাতাল মিলনায়তনে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোহাম্মদ মাঈন উদ্দিন খান, আবাসিক মেডিকেল কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ বিলাল উদ্দিন, ডাঃ ওয়াদুদ সরকার, শংকর চন্দ্র সরকার, আব্দুল মতিন দুলাল প্রমুখ। # ২৪.০৩.১৮

দুর্গাপুরে গর্ভবতী মায়েদের মধ্যে মোবাইল ফোন বিতরণ

নির্মলেন্দু সরকার বাবুল, দুর্গাপুর(নেত্রকোনা)
নেত্রকোনার দুর্গাপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স মিলনায়তনে গর্ভবতী শতাধিক মায়ের মধ্যে মোব্ইল ফোন সেট বিতরণ করা হয়। শনিবার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এক অনুষ্ঠানে গর্ভবতী মায়েদের হাতে মোবাইল ফোন সেট গুলো তুলে দেয়া হয়।
ঢাকা থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক মা ও শিশুর মৃত্যুর হার কমানো ও পুষ্টি বিষয়ক সচেতনতা বৃদ্ধিসহ গর্ভবতী মায়েদের সরাসরি মুঠোফোনে কাউন্সিলিং করার জন্য এসব মোবাইল ফোন সেট বিতরণ করা হয়।
পরিসংখ্যানবিদ লিন্টু সরকারের সঞ্চালনায় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডা. মো. মাইন উদ্দিন খানের সভাপতিত্বে এ উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন ডিজিএইচএস মহাখালিস্থ প্লানিং এন্ড রিসোর্স অফিসার ডা. মো. সাইফুল ইসলাম। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. মো. বিলাল উদ্দিন, সাংবাদিক নির্মলেন্দু সরকার বাবুল, তোবারক হোসেন খোকন, পল্টন হাজং প্রমুখ।

নববধুর লাশ ফেলে রেখে পালিয়ে গেলেন স্বামী শাশুড়ী
নির্মলেন্দু সরকার বাবুল, দুর্গাপুর(নেত্রকোনা)
নেত্রকোনার দুর্গাপুরে বিয়ের মাত্র সাতদিনের মাথায় এক নববধুর রহস্যজনক মৃত্যুর পর লাশ বাড়িতে ফেলে রেখে স্বামী, শাশুড়ী ও পরিবারের লোকজন পালিয়ে গেলেন। শনিবার থানা পুলিশ হালিমা আক্তার (১৯) নামের নববধুর লাশ ময়না তদন্তের জন্য নেত্রকোনা জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।
পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সুত্রে জানাযায়, উপজেলার বাকলজোড়া ইউনিয়নের গাবাউতা গ্রামের আবুল হাসিমের ছেলে বিল্লাল হোসেনের সাথে পার্শ্ববর্তী পুর্বধলা উপজেলার হোগলা গ্রামের অসমত মিয়ার মেয়ে হালিমা আক্তারের সাথে ঘটা করে গত সাতদিন পুর্বে বিয়ে হয়। বিয়ের পর নববধুর স্বামী ও শাশুড়ী সহ পরিবারের লোকজনের সাথে বনিবনা না হওয়ায় তাঁর উপর চালানো হয় শারিরিক ও মানসিক নির্যাতন। এদিকে রহস্যজনক ভাবে শুক্রবার নববধু হালিমার মৃত্যুরপর স্বামী বিল্লাল ও শাশুড়ীসহ পরিবারের লোকজন লাশ বাড়ীতে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে থানা পুলিশ মেঝেতে পড়ে থাকা অবস্থায় শুক্রবার বিকেলে ওই নববধুর লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।
দুর্গাপুর থানার ওসি মিজানুর রহমান আকন্দ শনিবার যাযাদিকে বলেন, আমরা লোক মুখে ওই নববধুর আত্মহত্যার খবর পেয়ে তাঁর লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছি। তবে নববধু হালিমা আদৌ আত্মহত্যা করেছেন কিনা অথবা তাঁকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে কিনা এ বিষয়টি এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

দৈনিক আমার বাংলাদেশ

দৈনিক আমার বাংলাদেশ

%d bloggers like this: