করোনা ভাইরাস সংক্রমণের বিস্তার বাংলাদেশের সব জায়গায় একরকম নয়

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের বিস্তার বাংলাদেশের সব জায়গায় একরকম নয়। আমেরিকাতেও সব স্টেইট গুলিতে একই হারে সংক্রমণ দেখা যায় নি। বিভিন্ন হটস্পট গুলিতে দ্রুত ছড়িয়ে যাচ্ছে এই ভাইরাস। তাই জরুরি ভিত্তিতে লকডাউন কঠোরভাবে কার্যকর করা না হলে বিপর্যয় আসন্ন। দেশের ৮ টি বিভাগের ৬৪ টি জেলায় আক্রান্তের ঘটনা নিশ্চিত করা গেছে। মহানগর ব্যতীত, ঢাকা বিভাগে সর্বোমোট আক্রান্ত ২,৫৬৪ জন এবং শতকরা হারে ২৩.২১% । চট্টগ্রাম বিভাগে সর্বোমোট আক্রান্ত ৬৬৯ জন এবং শতকরা হারে ৬.০৬%। সিলেট বিভাগে সর্বোমোট আক্রান্ত ১৬৫ জন এবং শতকরা হারে ১.৪৯%। রংপুর বিভাগে সর্বোমোট আক্রান্ত ৩০৩ জন এবং শতকরা হারে ২.৭৪%। খুলনা বিভাগে সর্বোমোট আক্রান্ত ২১৭ জন এবং শতকরা হারে ১.৯৬%। ময়মনসিংহ বিভাগে সর্বোমোট আক্রান্ত ৪১৪ জন এবং শতকরা হারে ৩.৭৫%। বরিশাল বিভাগে সর্বোমোট আক্রান্ত ১৩৭ জন এবং শতকরা হারে ১.২৪%। রাজশাহী বিভাগে সর্বোমোট আক্রান্ত ১৫৫ জন এবং শতকরা হারে ১.৪০%। প্রতিবেশী দেশগুলোর তুলনায় কম পরীক্ষা করাকেই, দেশে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা কম পাওয়ার কারণ হিসেবে বিবেচনা করছেন ২২ মার্চ পর্যন্ত বাংলাদেশে সর্বোমোট পরীক্ষা করা হয়েছে ৩২,৬৩০ টি যা ভারতে ৫০০,৫৪২ টি, ১৪ কোটি জনসংখ্যার দেশ হিসেবে যথেষ্ট পরিমান পরীক্ষা বাংলাদেশে করা হয়নি।১৮ এপ্রিলের তথ্যানুসারে দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশে মৃত্যুহার সবচেয়ে বেশী। বাংলাদেশের হার ৪% যা ভারতে ৩.৩; পাকিস্তানে ১.৮; শ্রীলঙ্কায় ২.৯; এবং আফগানিস্তানে ৩.৬% । দক্ষিণ এশিয়ায় নেপাল,ভুটান ও মালদ্বীপের অবস্থান তুলনামূলক ভাল। তাই করোনা ভাইরাস সংক্রমণের লক্ষন দেখা দিলে পরীক্ষা করান। শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুটি বুথে Nasal swab sample test for COVID 19 করা হয়। করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ডের সামনের বুথে সকালে আমাদের দক্ষ টেকনেশিয়ানরা Sample collection করছেন প্রতিদিন। আসুন টেস্ট করি, করোনা থেকে অন্যদেরকে রক্ষা করি।

ডাঃ আবিদুর রহমান জিমি

আরপি মেডিসিন

সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ