জুনে প্রায় ১০ কোটি ডোজ টিকা উৎপাদন করবে সেরাম

ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট জুনের মধ্যে ৯ থেকে ১০ কোটি ডোজ কোভিশিল্ড টিকা উৎপাদন ও সরবরাহ করতে সক্ষম হবে। ভারত সরকারকে লেখা এক চিঠিতে এ কথা জানিয়েছে সেরাম। রোববার সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে।

ভারতের সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের খবরে এ কথা জানানো হয়। সম্প্রতি ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে ওই চিঠি দেয় বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ টিকা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান সেরাম ইনস্টিটিউট। চিঠিতে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার উদ্ভাবিত টিকা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানটি বলেছে, সেরামের কর্মীরা করোনাভাইরাসের বিভিন্ন চ্যালেঞ্জের মধ্যেও দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন।

সেরাম ইনস্টিটিউটের গভর্নমেন্ট অ্যান্ড রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স পরিচালক প্রকাশ কুমার সিং চিঠিতে বলেছেন, ‘আমরা আনন্দের সঙ্গে জানাচ্ছি, জুনে আমরা ৯ থেকে ১০ কোটি ডোজ কোভিশিল্ড টিকা উৎপাদন ও সরবরাহ করতে পারব। মে মাসে আমাদের সক্ষমতা ছিল সাড়ে ছয় কোটি ডোজ।’

চিঠিতে প্রকাশ কুমার ‘মূল্যবান নির্দেশনা ও ক্রমাগত সমর্থনের’ জন্য অমিত শাহকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেছেন, ‘ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট কোভিড-১৯ থেকে দেশ এবং বিশ্বের নাগরিকদের সুরক্ষা সম্পর্কে সর্বদা আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

সেরামের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আদর সি পুনেওয়ালার নেতৃত্বে কোভিড-১৯ মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আমাদের টিম সরকারের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে নিরলসভাবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।’ সরকারের সমর্থন ও নির্দেশনায় আগামী মাসেও টিকা উত্পাদনক্ষমতা বাড়ানোর জন্য সব সম্পদ ব্যবহারের যথাসাধ্য চেষ্টার কথাও জানান প্রকাশ কুমার।

মে মাসের শুরুর দিকে সেরাম ইনস্টিটিউট সরকারকে জানায়, জুন নাগাদ তাদের উৎপাদন সাড়ে ছয় কোটি পর্যন্ত বাড়ানো যাবে। এ ছাড়া জুলাইয়ে সাত কোটি এবং আগস্ট ও সেপ্টেম্বরে ১০ কোটি ডোজ করে উৎপাদন করতে পারবে তারা।

ভারতে করোনা মোকাবিলায় বর্তমানে সেরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি কোভিশিল্ড টিকার পাশাপাশি ভারত বায়োটেকের তৈরি কোভ্যাক্সিন টিকার প্রয়োগ চলছে। এ ছাড়া দেশটিতে রাশিয়ার স্পুতনিক-ভি টিকাটিও জরুরি ব্যবহারের জন্য নিয়ন্ত্রকদের অনুমোদন পেয়েছে।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের প্রথম ধাক্কা সামাল দেওয়ার সময় গত বছরের নভেম্বরে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি তিন কোটি ডোজ করোনার টিকা কিনতে বেক্সিমকো ফার্মাকে যুক্ত করে ত্রিপক্ষীয় চুক্তি করে বাংলাদেশ। দুই দফায় সেরাম ৭০ লাখ ডোজ টিকা পাঠায়। ভারতে করোনা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতি ঘটায় দেশটির সরকার টিকা রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। এরপর সেরাম টিকা রপ্তানি বন্ধ করে দেয়। সেপ্টেম্বরের আগে সেরাম টিকা রপ্তানি করতে পারবে না বলে জানিয়েছে।

Source: Prothomalo

%d bloggers like this: