চাকরি করবেন না ব্যবসা করবেন ?

চাকরি করবেন না ব্যবসা করবেন, আমি বলব আপনারার ব্যবসা করবেন আপনার ব্যবসার মাধ্যমেই হয়তো কারো কর্মসংস্থান হবে। কোন বেকার ব্যক্তি আপনার প্রতিষ্ঠানে চাকরী করে তার পরিবারের পাশে দাঁড়াতে পারবে। বিশেষ করে আমরা বাঙালিরা ব্যবসা করতে ভয় পাই। এই ভেবে যদি ব্যবসায় লাভের থেকে ক্ষতি হয় বেশি। আমরা বাঙালীরা কোন কাজে ঝুঁকি নিতে চাই না। ব্যবসা একটি ঝুঁকি পূর্ন কাজ, কিন্তু এটাও ঠিক যে ঝুঁকি পূর্ণ কাজে লাভ ও বেশি।

আমাদের সবার যখন জীবিকা নির্বাহের জন্য কর্মসংস্থান নির্বাচন করার সময় আসে আমরা তখন ভাবি, চাকরি করব না ব্যবসা করব। কিন্তু আমাদের বেশির ভাগ পরিবার আমাদের কে শেখায় যে তোর বড় হয়ে অনেক বড় চাকরী করতে হবে। আর আমাদের ছোট বেলা থেকে যে ‍বিষয়টি মাথায় ঢুকিয়ে দেয় আমরা সেই বিষয়টি নিয়েই ভাবতে থাকি যে আমার বড় হয়ে চাকরী করতে হবে। আমার চাকরী করে আমার পরিবারের পাশে দাঁড়াতে হবে। কোন পরিবার তার সন্তানকে এটা শিখায় না যে তোর বড় হয়ে বেকার মানুষের কর্মসংস্থান করতে হবে। যদি তার বাচ্চাকে চাকরী করার কথা বোঝালে বোঝে, তাহলে ওই বাচ্চাকে একটা কোম্পানির তৈরি করার কথা বলবে ও বুঝবে অথবা বেকার মানুষের কর্মসংস্থান করার কথা বললে ও বুঝবে। সেই বাচ্চা তার কোন কাজ করার আগে সেটা ও ভাববে যে আমার বেকার মানুষের কর্মসংস্থান করতে হবে। আমরা এটা না করে বলি তোকে চাকরী করতে হবে।

কিন্তু যে বাচ্চা অন্য বাচ্চার থেকে একটু ভিন্ন ভাবে চিন্তা করবে, সেই বাচ্চাটিকে আমরা বাঙালীরা বলি ও পাগল। শুধু মাত্র পরিবারের ছোট খাটো কিছু কথা না বলার কারণে আমাদের দেশে বিলগেটস হয় না, ইলন মাকস হয় না, স্টিভ জবস হয় না। যদি কোন পরিবার তাদের বাচ্চাকে চাকরী করার কথা না বলে অন্য কিছু ভাবতে শেখায় তাহলে তো সেও হতে পারে বিলগেটস, ইলন মাকস, স্টিভ জবসের মতো। আবার অনেক পরিবার চিন্তা করে একে কোম্পানি করার অথবা ব্যবসা করার স্বপ্ন দেখিয়ে কী করব একটা কোম্পানি করতে যে পরিমান টাকার প্রয়োজন তা কী ভাবে দিব। এই ভেবে অনেকে চাকুরী করার স্বপ্ন দেখায় কিন্তু বর্তমানে একটি ছেলে মেয়েকে চাকরীতে ঢোকাতে গেলে ও লক্ষ লক্ষ টাকা দিতে হয়। এই টাকাটা যদি তাকে ব্যবসা করতে দেওয়া হয়, তাহলে ক্ষতি কী? আর কোম্পানি খুলতে গেলে টাকার থেকে বেশি প্রয়োজন ইচ্ছা শক্তির। স্কয়ার কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা স্যামসন এইস চৌধুরী সহ তার তিন বন্ধু মিলে ২০ হাজার টাকা করে মোট ৮০ হাজার টাকা দিয়ে কোম্পানি তৈরি করেন। ওই কোম্পানির প্রথম ঔষধ ছিল রক্ত পরিশোধনের এস্টন সিরাপ। তারপর থেকে কোম্পানি একটা বিভাগ থেকে আর ও অনেক বিভাগ করেছে। তারা যদি করতে পারে তাহলে আপনি পারবেন না কেন ? আপনার সন্তান পারবে না কেন ? এই গুলো করতে হলে আমাদের সকল বাঙালী পারিবারকে সচেতন হতে হবে। সকল বাচ্চাদের সঠিক স্বপ্ন দেখা শিখাতে হবে।

Source: viralbd

%d bloggers like this: