‘বিশ্বের তিনজন সৎ ও পরিশ্রমী রাষ্ট্রনায়কের একজন শেখ হাসিনা’

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও সাবেক শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, বাংলাদেশকে এক সময় গরিব দেশ বলা হতো, কিন্তু এখন আর আমাদের দেশকে কেউ গরিব বলতে পারবে না। কারণ বাংলাদেশ এখন উন্নয়নে বিশ্বের রোল মডেল। এটা আমাদের কথা নয়, বিশ্বনেতারাই বিভিন্ন স্থানে দৃষ্টান্ত হিসেবে বাংলাদেশের নাম বলছেন।

আমির হোসেন আমু বলেন, শেখ হাসিনারর বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কারণে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বিশ্বের তিনজন সৎ ও পরিশ্রমী রাষ্ট্রনায়কের মধ্যে শেখ হাসিনার নাম রয়েছে। তিনি আন্তর্জাতিক ৩৭টি পুরস্কার লাভ করেছেন।

শনিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) ঝালকাঠি সরকারি কলেজ মাঠে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। প্রায় ১২ কোটি টাকা ব্যয়ে কলেজের নতুন ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উপলক্ষে এ সভার আয়োজন করা হয়। এর আগে আমির হোসেন আমু ফলক উন্মোচন শেষে দোয়া মোনাজাতে অংশ নেন।

তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা যেন বইয়ের অভাবে ঝড়ে না পড়ে, সেজন্য প্রথম শ্রেণি থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত বিনামূল্যে বই বিতরণ করে যাচ্ছে সরকার। তাদের অর্থকষ্ট দূর করতে বৃত্তি-উপবৃত্তি প্রদান করা হচ্ছে। এ ছাড়া নানা ধরণের সাহায্য সহযোগিতা করা হয়। সরকার গ্রামের স্কুলগুলোতেই ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাব স্থাপন করেছে, মাল্টিমিডিয়া দেওয়া হয়েছে। গ্রামের ছেলে মেয়েরাও এখন উচ্চ শিক্ষা লাভ করছে। এ প্রক্রিয়াগুলোর একটা উদ্দেশ্য বাংলাদেশকে একটি আধুনিক রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলা। এর মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন হবে।

গ্রামকে শহরে রূপান্তর করা হচ্ছে জানিয়ে আমু বলেন, আজকে বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার হাত ধরে বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। তৃণমূল পর্যায়ে উন্নয়নের জন্য নতুন নতুন প্রকল্প হাতে নেওয়া হচ্ছে।

ঝালকাঠি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মো. আনছার উদ্দিনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী, পুলিশ সুপার ফাতিহা ইয়াসমিন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সরদার মো: শাহ আলম, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খান সাইফুল্লাহ পনির, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান খান আরিফুর রহমান ও পৌর মেয়র লিয়াকত আলী তালুকদার।

Daily Amar bangladesh

Lorem Ipsum is simply dummy text of the printing and typesetting industry. Lorem Ipsum has been the industry's standard dummy text ever since the 1500s, when an unknown printer took a galley of type and scrambled it to make a type specimen book. It has survived not only five centuries