মাদ্রাসা সুপার ছাত্রীকে যৌন হয়রানীর প্রতিবাদে শ্রীপুরে অনিদিষ্ট কালের জন্য কাস বর্জন

শ্রীপুর(গাজীপুর) প্রতিনিধি: শ্রীপুরে মাদ্রাসা সুপার ছাত্রীকে যৌন হয়রানীর প্রতিবাদে অনিদিষ্ট কালের জন্য কাস বর্জন করেছে। ১০ মার্চ শনিবার সকাল দিকে একযোগে কাব বর্জন করে ছাত্রীরা মাদ্রাসা ত্যাগ করে। মাদ্রাসার কর্মরত শিক্ষক ও শিক্ষিকাদের তথ্য মতে, জানান গেছে, সুপার নিজের কাগজপত্র জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে চাকুরী নেন। নুরুল আমিন জালসনদ, ভুয়া এমপিও ইনডেক্সের মাধ্যমে অত্র প্রতিষ্ঠানে সুপার পদে নিয়োগে পেয়ে যোগদান করেন।
গত ১৬ জানুয়ারী মাদরাসায় ১০ম শ্রেনীর এক ছাত্রীর সাথে যৌন হয়রানীর পর থেকে ১৩ মাস যাবৎ মাদরাসায় অনুপস্থিতি রয়েছে।
৮ মার্চ বৃহস্পতিবার মাদ্রাসার সুপার নুরুল আমিন স্থানীয় এক আ’লীগ নেতা প্রভাবখাটিয়ে মাদ্রাসার অফিস কক্ষে প্রবেশ করে হাজিরা খাতায় দেড় মাসের স্বাক্ষর করেন কয়েক মিনিটে। শিক্ষার্থীরা টের পেয়ে শ্রেণীকক্ষ থেকে বেড়িয়ে এসে প্রতিবাদ করেন। এসময় মাদ্রাসার সুপার নুরুল আমিন শিক্ষার্থীদের নানাভাবে ভয়ভীতি দেখায় এবং অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করেন।
প্রতিবাদে ছাত্রীরা শনিবার সকালে একযোগে শ্রেণীকক্ষ থেকে বেড়িয়ে অনির্দিষ্ট কালের জন্য কাব বর্জন করে। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, কাস বর্জনের বিষয়ে তিনি জেনেছেন।
মাদ্রাসার সুপারের জালজালিয়াতির মুল হোতা, তার জাল জালিয়াতি ও যৌন হয়রানীর বিষয়ে ৪টি তদন্তে প্রমানিত হয়েছে। বিষয়টি শিক্ষা মন্ত্রনালয়, মাদরাসা অধিদপ্তর, মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড, জেলা প্রশাসক, গাজীপুর, জেলা শিক্ষা অফিসারকে অবহিত করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা দরকার।