মহেশপুরে স্কুল ড্রেস না থাকায় স্কুরে যেতে পারছেনা শিক্ষার্থীরা

মহেশপুর(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধিঃ  ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার শংকরহুদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের স্কুল ড্রেস না থাকায় শ্রেনী কক্ষ থেকে বের করে দেওয়া শিক্ষার্থীরা স্কুলে যেতে পারছে না।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মশিয়ার রহমান বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীর উদ্দেশ্যে করে বলেন যাদের স্কুল ড্রেস নেই তাকের স্কুলে আসার দরকার নেয়। যারা স্কুল ড্রেস পরে আসতে পারবে তারা শুধু মাত্র স্কুলে আসবে। পরে তিনি প্রত্যেক শ্রেনী কক্ষে ডুকে যে সকল শিক্ষার্থীরা স্কুলের নির্ধারিত ড্রেস পড়ে আসতে পারেনি তাদেরকে শ্রেনী কক্ষ থেকে বের করে দেন। বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেনীর এক শিক্ষার্থী জানায়, সে অতি দরিদ্র পরিবারের সদস্য। তার পিতা অনেক কষ্ট করে তাদের ভাই-বোনের লেখা পড়ার খরচ চালাচ্ছে। সে জানায় আমার পিতা স্কুল ড্রেস কিনে দিতে পারছে না। তাই হেড স্যার আমাকে ও আমাদের স্কুলের ১০/১২জনকে স্কুল থেকে বের করে দেয়।
নাম প্রকাশে অনইচ্ছুক আরো এক শিক্ষার্থী জানিয়েছেন আমি বাড়িতে বার বার বলেও আমাকে স্কুল ড্রেস তৈরি করে দিচ্ছে না। সে জন্য আমি এখন স্কুলে যেতে পারছিনা।
এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষকের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, উপর মহলের নির্দেশক্রমে তিনি সকল শিক্ষার্থীকে ড্রেস পরে আসার জন্য বাব বার বলা সত্বেও বিষয়টি নিয়ে তেমন গা লাগাচ্ছে না অভিভাবকেরা। এজন্য বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ড্রেস পরে স্কুলে আসতে বলা হয়েছে। স্কুল ড্রেস না পরে আসতে পারলে বিদ্যালয়ে ডুকতে দেওয়া হবে না।
বিদ্যালয় পরিচালন কমিটির সভাপতি রুহুল আমিনের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে খোজ নেওয়া হবে।
মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সুত্রে জানা গেছে, মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের স্কুল ড্রেসের সরকারি কোন নীতিমালা নেই। তবে স্কুল পর্যায়ে মৌখিক নির্দেশনা আছে। যদি আর্থিক কারনে স্কুল ড্রেস তৈরি করতে না পারে তবে তাকে জোর করা যাবে না।