রাণীনগরে রেলের ওভারব্রিজটি মরণফাঁদ

কাজী আনিছুর রহমান,রাণীনগর (নওগাঁ) : নওগাঁর রাণীনগর রেলষ্টেশনের ওভারব্রিজটি মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। এই ওভারব্রিজে ধাক্কা লেগে প্রায়ই ঘটছে প্রাণহানি। গত ২ বছরে এখানে দূর্ঘটনায় ২০ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছে প্রায় অর্ধশতাধিক। বিশেষ করে ট্রেনের ছাদে অবৈধ ভ্রমণতারী যাত্রীরা এ দূর্ঘনায় শিকার হচ্ছে। গত বুধবার ভোরে ফুট ওভারব্রিজের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ট্রেনের ছাদ থেকে ছিটকে পড়ে ৪ যাত্রীর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে আরো ৪ যাত্রী।
সান্তাহার জংশন ষ্টেশনের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর কমার্শিয়াল ( টি আই সি) মো: আব্দুস সোবহান দূর্ঘটনার পর বুধবার সকালে রাণীনগর রেলষ্টেশন পরিদর্শন করে জানান, গত দুই বছর আগে রেললাইন প্রায় দুই ফুট উচুঁ করা হয়। ওভারব্রিজগুলো রয়ে যায় আগের অবস্থাতেই। বিশেষ করে রাণীনগর রেলওয়ে ষ্টেশনের ওভারব্রিজটি একটু নিচুঁ হওয়ায় ওই খানে প্রায়ই দূর্ঘটনা ঘটছে। সান্তাহার ষ্টেশন মাষ্টার রেজাউল করিম ডালিম বলেন, ট্রেন ছাড়ার আগেই বারবার মাইকিংসহ ট্রেসযাত্রীদের সর্তক করা হলেও কেউ নিষেধ শুনছেনা। রাণীনগর প্রেস কাবের সাধারণ সম্পাদক সাইদুজ্জামান সাগর বলেন, ওভারব্রিজটি রেলের যাত্রী বা এলাকার সাধারণ মানুষের কোন কাজে লাগছেনা অথচ সেথা এখন মৃত্যু ফাঁদে পরিণত হয়েছে। অবিলম্ভে এটি অপসারণ অথবা উচুঁ করা প্রয়োজন।
গত বুধবার দূর্ঘটনায় নিহত হলো দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার বড়হাশিমপুর ডাক্তারপাড়া গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (১৯), একই জেলার পার্বতীপুর উপজেলার চৈতাপাড়া গ্রামের মফিজ উদ্দিনের ছেলে মুনির হোসেন (২২), নওগাঁ সাপাহার উপজেলার মালিপুর গ্রামের আব্দুল লতিফের ছেলে আমিনুল ইসলাম (২৯) এবং পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার তিতুপাড়া গ্রামের মো: রমজান আলীর ছেলে আপেল মাহমুদ (২৬)। তাদের মধ্যে ২ জন কলেজ ছাত্র ও ২জন গার্মেন্ট কর্মী। আহতরা হলো – জয়পুর হাটের আক্কেলপুর উপজেলার মকিমপুর গ্রামের বাসিন্দা আরিফুল ইসলাম ওরফে আরিফ। নাটোর বড়াইগ্রাম উপজেলার রাজেন্দ্রপুর গ্রামের মেহেদী হাসান, নীলফামারীর ডোমারের বারইসা গ্রামের মোতালেব হোসেন ও নওগাঁর সাপাহারের বাকরইল গ্রামের আবু সাঈদ । এদূর্ঘটনায় রেলের পক্ষ থেকে জিআরপি থানায় একটি জিডি করা হয়েছে।
নওগাঁ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপসহকারী পরিচালক মুরশেদ হোসেন জানান, আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে নওগাঁ সদর হাসপাতালে ভর্তি কার হয়। তাদের মধ্যে আরিফুল, মোতালেব ও মেহেদীকে রামেক হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। তিনি জানান, রাণীনগর রেলষ্টেশনের ওভারব্রিজের উচ্চতা রেললাইন থেকে ১৫ ফুট ৩ ইঞ্চি। আর ওই লাইনের যাতায়াতকারী ট্রেনের উচ্চতা ১৩ ফুট ৬ ইঞ্চি। যার কারণে অবৈধ ছাদে উঠা যাত্রীদের জন্য ওভারব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।
সান্তাহার জিআরপি থানার ইনচার্জ মো: আকবর হোসেন জানান, ঢাকা অফিসার থেকে ছেড়ে আসা দিনাজপুরগামী ৭৫৭ দ্রুতযান আন্ত:নগর এক্্রপ্রেস ট্রেন বুধবার ভোর ৩টা ২০ মিনিটে রাণীনগর রেলষ্টেশন অতিক্রম করার সময় এদূর্ঘটনা ঘটে।
সান্তাহার ষ্টেশন মাষ্টার রেজাউল করিম ডালিম বলেন, আন্ত:নগর ট্রেনগুলোর মধ্যে কয়েকটি ট্রেন অনেক উচুঁ। এতে রাণীনগর ষ্টেশনের ওভারব্রিজের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ভ্রমণরত ট্রেনযাত্রীরা হতাহত হচ্ছে।#