রাঙ্গুনিয়ার সাবেক সাংসদ ও মুক্তিযোদ্ধা ইউসুফ আর নেই

জগলুল হুদা, রাঙ্গুনিয়া: চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ার সাবেক সাংসদ ও মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ ইউসুফ (৬৯)গতকাল রোববার(১৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল সোয়া ৮ টার দিকে বার্ধক্যজনিত রোগে মারা গেছেন। ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল(সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। আজ সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) তাঁর নিজ বাড়ি উপজেলার পূর্ব সৈয়দবাড়ি গ্রাম সংলগ্ন রাঙ্গুনিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জানাজা শেষে রাহাতিয়া নক্সবন্দীয়া দরবার কবরস্থানে তাঁকে দাফন করা হবে।
শ্রমিক নেতা থেকে এমপি : ১৯৮৬ ও ৯১ সালে পর পর দুইবার নৌকা প্রতিক নিয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেন। ৯১ সালে ৮ দলীয় জোট থেকে নৌকা প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হন। রাজনীতির মাঠে সৎ ও নির্ভীক কর্মী হয়ে নি¤œ মধ্যবিত্ত কৃষক পরিবারের সন্তান ঘরে জন্ম নিয়ে জাতীয় সংসদে যাওয়ার সুযোগ হয়েছিল তাঁর। জীবনের অধিকাংশ সময় গরীব অসহায় মানুষের দাবি আদায়ের সংগ্রামে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন। তিনি ব্যক্তিগত জীবনে বিয়ে করেননি। বাম রাজনীতি সিপিবি ও ট্রেড ইউনিয়ন রাজনীতির সাথে নিজেকে সক্রিয় করে। এছাড়াও ৬৯ সালে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের রাঙ্গুনিয়া উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন তিনি। এছাড়াও রাঙ্গুনিয়ায় স্বাধীনতার পর কৃষক, যুবক ক্ষেত মজুর ও শ্রমিক রাজনীতিতে রাঙ্গুনিয়ায় সক্রিয় ও নির্লোভ নেতা হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। জীবদ্দশায় নিজেকে রাজনীতির সাথে ওতপ্রোত জড়িত করার কারনে অবিবাহিত থেকে রাজনীতিতে পুরো সময় ব্যয় করেছেন। ১৯৮৬ সালে ৮ দলীয় জোটগত নির্বাচনে মো. ইউসুফের জয় নিশ্চিত থাকলেও প্রহসন করে তাকে হটিয়ে দেয়া হয়। ১৯৯১ সালে সাকা পরিবারের গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরীর সাথে বিপুল ভোটে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়। ৯০ সালের বিএনপির সরকারের মাঝামাঝি সময়ে আওয়ামীলীগ সংসদ থেকে পদত্যাগ করে বেরিয়ে আসলে মো. ইউসুফও পদত্যাগ করে সংসদ থেকে বেরিয়ে আসেন। এর পরেই তিনি আওয়ামীলীগে যোগদান করেন। বিএনপি তাকে দলে ভিড়ানোর জন্য নানা লোভ দেখালেও তিনি সে লোভে সাড়া না দিয়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতিতে নিজেকে সক্রিয়ভাবে নিয়োজিত রাখেন। সংসদ সদস্য থাকাকালীন সময়ে বিলাস বহুল জীবন যাপন উপেক্ষা করে সাধারণ গাড়ীতে চড়ে ও সাধারণ মানুষের সাথে মিশে তার নির্বাচনী এলাকায় মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে কাজ করেছিলেন। ৯৬ সালে তাকে আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন দেয়া না হলে এর পর থেকে মো. ইউসুফ রাঙ্গুনিয়ার রাজনীতিতে কোনঠাসা হয়ে পড়েন। ২০০১ সাল বিএনপি সরকার গঠন করলে মো. ইউসুফ রাজনীতিতে তেমন আলোচনায় ছিলনা। এর মাঝেই অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। অসুস্থ থাকাকালীন সময় ঢাকা পিজি হাসপাতালে প্রায় এক মাস ধরে চিকিৎসা নেয়ার সময় তার অসুস্থতার খবর মিডিয়াতে প্রকাশ হলে তিনি আশা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চিকিৎসার জন্য কিছু একটা করবেন। সে সময়ে চিকিৎসার ব্যয় মিটাতে তাকে অনেকের কাছে দ্বারস্থ হতে হয়েছে। ইতিমধ্যে ২০০৮ সালের নির্বাচনে ক্ষমতায় আসেন আওয়ামীলী, রাঙ্গুনিয়ার সাংসদ নির্বাচিত হন ড. হাছান মাহমুদ । তার চিকিৎসার সহায়তায় তিনিও এগিয়ে আসেন। এছাড়া ও তার বাড়িতে দেখতে যান বর্তমান গৃহায়ন ও গনপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন।