নবাবগঞ্জের দীঘিপাড়া কয়লা েেত্রর সম্ভাব্যতা জরিপ কাজ শুরু

প্লাবন শুভ, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : দিনাজপুরের নবাগঞ্জের দীঘিপাড়া কয়লাক্ষেত্রের সম্ভাব্যতা জরিপ কাজ শুরু করেছে সংশ্লিষ্ট বিভাগ। কয়লাক্ষেত্রের সম্ভাব্যতা জরিপ কাজের মধ্যে পুটিমারা ইউনিয়নের দীঘিপাড়া এলাকায় যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলাসহ কাজের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের আবাসন ব্যবস্থা বিষয়গুরোকে প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে।
দীঘিপাড়া কয়লাক্ষেত্রের প্রকল্প পরিচালক জাফর সাদিক বলেন, দীঘিপাড়া কয়লাক্ষেত্রের সম্ভাব্যতা জরিপ কাজ শুরু করা হয়েছে। ভূগর্ভে কয়লার পাশাপাশি অন্য কিছু আছে কী না? থাকলে কতটুকু আছে সেগুলো তুলতে এলাকার মানুষকে কীভাবে সম্পৃক্ততা করা যায় এসব বিষয়গুলোকে সামনে রেখে কাজ শুরু করা হয়েছে। জরিপ কাজে কয়লা ক্ষেত্র এলাকায় ৫০ থেকে ৬০টি স্থানে বোরিং করা হবে। কয়লা খনির বিষয়ে এলাকার গ্রামগুলোসহ হাটবাজারে, গুরুত্বপূর্ণ জনবহুল এলাকায়, হোটেল-রেস্টুরেন্টগুলোতে কয়লা উত্তোলন নিয়ে এলাকাবাসীর সাথে আলোচনা করা হচ্ছে। খনি বাস্তবায়ন নিয়ে এলাকাবাসী যেন বিভ্রান্ত না হন সে বিষয়গুলো মানুষকে পরিস্কার ধারনা দেওয়া হচ্ছে। একই সাথে অধিগ্রহণকৃত জমির মূল্য নির্ধারণসহ পুনর্বাসনের বিষয়টিও গুরুত্ব পাচ্ছে আলোচনাগুলো। আর এসব বিষয়গুরো জানার জন্যই সম্ভাব্যতা জরিপ কাজ চালানো হচ্ছে।
জানা যায়, দেশের অব্যাহত জ্বালানী চাহিদা মেটাতে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে দীঘিপাড়া কয়লাক্ষেত্র উন্নয়ন ও উৎপাদনের দায়িত্ব নিয়েছে বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানী লিমিটেড (বিসিএমসিএল)। কয়লাক্ষেত্রটি উন্নয়ন করা হলে খনি থেকে বছরে ৪মিলিয়ন টন কয়লা উৎপাদন সম্ভব হবে। যা দিয়ে ৪হাজার মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করা যাবে। এসব বিবেচনায় বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদক মন্ত্রণালয়ের জ্বালানী বিভাগ দীঘিপাড়া কোল বেসিনের ২৪ বর্গ কিলোমিটার এলাকায় মোট কয়লার পরিমাণ নির্ণয়সহ বেসিনের কেন্দ্রীয় অংশে ১০ থেকে ১১ বর্গ কিলোমিটার ভূগর্ভস্থ (ওপেন পিট) পদ্ধতিতে বছরে ৪মিলিয়ন টন কয়লা উৎপাদন ক্ষমতা সম্পন্ন খনি উন্নয়নের জন্য বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানী লিমিটেড (বিসিএমসিএল) কর্তৃপক্ষকে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।
উল্লেখ্য, দীঘিপাড়া কয়লাক্ষেত্র থেকে কয়লার অনুসন্ধান ও কয়লা উত্তোলনের বিষয়ে ২০১৫সালের ২১অক্টোবর বাংলাদেশ খনিজ সম্পদ উন্নয়ন ব্যুারো (বিএমডি) ও বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানী লিমিটেড (বিসিএমসিএল) এর মধ্যে একটি সমঝোতা চুক্তি সম্পদিত হয়েছে।