দুর্গাপুরে মিথ্যা সংবাদের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

নির্মলেন্দু সরকার বাবুল, দুর্গাপুর(নেত্রকোনা): নেত্রকোনার দুর্গাপুর সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে নামধারী সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাদাবীর প্রতিবাদে অফিসের সকল কর্মচারী, দলিল লিখক ও ষ্ট্যাম্প ভেন্ডারদের পক্ষে অফিস সহকারী বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ সিরাজুল হক সংবাদ সম্মেলন করেন। এ উপলক্ষে শনিবার দুপুরে সাব-রেজিস্টার অফিস মিলনায়তনে স্থানীয় প্রেসকাব সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে মোঃ সিরাজুল ইসলাম লিখিত বক্তব্যে বলেন, গত ১ফেব্রুয়ারী ২০১৮খ্রীঃ, দুপুরে মোঃ ওয়ালি হাসান, পিতা- মৃত হাছেন আলী, সাকিন শিরবির, দুর্গাপুর নেত্রকোনা তার সঙ্গীয় অজ্ঞাতনামা আরও ২(দুই) জন লোক স্ব-স্ব হাতে ভিডিও ক্যামেরা নিয়া দুর্গাপুর সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের সম্মুখ ভিডিও করে অন্যায়ভাবে দুর্গাপুর প্রেসকাবের কথা বলে দশ হাজার টাকা সালামী দাবী করে। চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা পরিচয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে দেশের সকল মুক্তিযোদ্ধাদের কটুক্তি করে চলে যাওয়ার সময় দেখে নেবে বলে হুমকি দিয়ে যায়। তারই ধারাবাহিকতায় ৩ফেব্রুয়ারী ফেসবুক, অনলাইন ও ৪ফেব্রুয়ারী আঞ্চলিক পত্রিকায় মিথ্যা, বানোয়াট ও বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রকাশ করে সংবাদ পরিবেশন করেছে। আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মোঃ আব্দুল হামিদ, হাজী আবুল কাশেম, মোঃ আব্বাস উদ্দিন, দুলাল সরকার, শিশির বিন্দু সরকার প্রমুখ।

 

জাতীর জনক কে বঙ্গবন্ধু উপাধী দেয়ায়
দুর্গাপুরে আলোচনা ও মিষ্টি বিতরন

নির্মলেন্দু সরকার বাবুল, দুর্গাপুর(নেত্রকোনা)

নেত্রকোনার দুর্গাপুরে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কে ১৯৬৯ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধিতে ভুষিত করায় আলোচনা ও মিষ্টি বিতরন করা হয়েছে।

এ উপলক্ষে শুক্রবার রাতে জালাল উদ্দিন তালুকদার ফাউন্ডেশান এর আয়োজনে উপজেলা যুবলীগের সহ:সভাপতি এস এম কামরুল হাসান জনির সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন, বঙ্গবন্ধু গবেষনা পরিষদ এর কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ডাঃ আরিফ জোবায়ের। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন আকঞ্জি। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন প্রভাষক নুরে আলম, যুবলীগ নেতা লেলিন, লোটাস, বাপ্পন শিকদার, রুবায়েত জয় প্রমুখ। বক্তারা বলেন, ১৯৬৯ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ শেখ মুজিবের সম্মানে লাখো জনতার উপস্থিতিতে শেখ মুজিবকে বঙ্গবন্ধু নামে উপাধী দেওয়া হয়। আলোচনা শেষে মিষ্টি বিতরন করা হয়।