কেশবপুরে আওয়ামী লীগের দু’গ্রু প মুখোমুখি হওয়ায় বর্ধিত সভা পন্ড

তন্ময় মিত্র বাপী, কেশবপুরে (যশোর) : যশোরের কেশবপুর উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে দলীয় কার্যালয়ে ২১ ফেব্র“য়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন উপলে উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে পৌরসভাসহ ১১টি ইউনিয়নের সভাপতি, সম্পাদকসহ মুল সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সাথে এ বর্ধিত সভার আয়োজন করা হয়। শনিবার আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে আওয়ামী লীগের দু’গ্র“প মুখোমুখি হওয়ায় দলের বর্ধিত সভা শুরুতেই পন্ড হয়ে যায়। এ ঘটনায় দুই গ্র“পের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।
জানা গেছে, শনিবার দুপুরে আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে বর্ধিত সভা শুরু হয়। বর্ধিত সভায় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম মোস্তফা, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এইচ এম আমির হোসেন, জেলা আওয়ামীলীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী রফিকুল ইসলাম, যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য প্রকৌশলী হাসান আলমগীর, পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক অ্যাডভোকেট মিলন মিত্র, উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রাবেয়া ইকবাল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর শেখ এবাদত সিদ্দিক বিপুল, সাংগঠনিক সম্পাদক গৌতম রায়, দপ্তর সম্পাদক মফিজুর রহমান মফিজ, সুফলাকাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি চেয়ারম্যান মাষ্টার আবদুস সামাদ সরদার, মজিদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম সরোয়ার, আওয়ামী লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, পৌরসভাসহ ১১ টি ইউনিয়ন থেকে আসা নের্তৃবৃন্দ। পর্যায়ক্রমে বক্তব্য দেয়া শুরু হয়। দুপুর ৩ টার দিকে বক্তব্যে একে অপরের বিরুদ্ধে বক্তব্য দেয়ায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমিন, সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম মোস্তফা, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এইচ এম আমির হোসেন গ্র“প ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর শেখ এবাদত সিদ্দিক বিপুল, সাংগঠনিক সম্পাদক গৌতম রায়, দপ্তর সম্পাদক মফিজুর রহমান মফিজ গ্র“প মুখোমুখি হয়ে সংঘর্ষের রূপ নেয়ায় বর্ধিত সভা পন্ড হয়ে যায়। এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর শেখ এবাদত সিদ্দিক বিপুল জানান, দলের ভিতর দীর্ঘদিন ধরে অভ্যন্তরীণ কোন্দল চলে আসছে। শনিবার দলের বর্ধিত সভায় বক্তব্যের ভিতরে একে অপরের বিরুদ্ধে বক্তব্য দেয়ায় নেতাকর্মীরা মুখোমুখি অবস্থান নিলে বর্ধিত সভা পন্ড হয়ে যায়। এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমিন বলেন, দলের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে অভ্যন্তরীণ কোন্দল চলছে। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন উপলে বর্ধিত সভা ডাকা হয়। বর্ধিত সভায় বক্তব্য চলাকালে দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। হঠাৎ যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নের্তৃবৃন্দ অফিসে ঢুকে পড়লে মুখোমুখি অবস্থান নেয়ায় বর্ধিত সভা স্থগিত করা হয়েছে।