চার বলে চার উইকেট মাশরাফির

নিউজ ডেস্ক : ক্যারিয়ারের সেরা সময় নাকি পার করে এসেছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। কিন্তু এবারের ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে যেন আবারও ফিরে পেয়েছেন সেই তুখোড় তারুণ্য। শুরু থেকেই ব্যাটে-বলে দুর্দান্ত পারফর্ম করছিলেন। কিন্তু আজ মঙ্গলবার যা করলেন, তা স্রেফ অবিশ্বাস্য—অগ্রণী ব্যাংকের বিপক্ষে টানা চার বলে নিয়েছেন ৪ উইকেট, মোট শিকার ছয়টি। স্বীকৃত ক্রিকেটেই এমন ঘটনা খুব বেশি ঘটেনি। এর আগে, মঙ্গলবার সকালে ফতুল্লা’র খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে টস জিতে আবাহনীর অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন।

ব্যাটিংয়ে নেমে আবাহনীর দুই ওপেনার আনামুল বিজয় ও সাইফ হোসেন সতর্ক শুরু করেন। উদ্বোধনী জুটিতে ৩৯ রান তুলে আনামুল হক বিজয় ব্যক্তিগত ২৩ রানে ফিরে যান। এরপর নাজমুল হোসাইন শান্ত ব্যাটিংয়ে নেমে সাইফের সঙ্গ ৬৪ রানের জুটি গড়েন। সাইফ ফিরে গেলে শান্ত তার স্বভাবসুলভ ভঙ্গিতে একের পর এক জুটি গড়েন নাসির, মোসাদ্দেক, মিথুনদের সাথে। ১৭৬ বলের ইনিংসে ১৩৩ রানে অপরাজিত থেকেই আবাহনীর ইনিংস শেষ করেন শান্ত। তার শত রানের ইনিংসে ছিল ১১টি চার আর ৩টি ছয়। নির্ধারত ওভার শেষে আবাহনীর সংগ্রহ দাঁড়ায় ৬ উইকেটে ২৯০ রান।

আবাহনীর দেয়া ২৯১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে আগ্রণীর শুরুটা দারুণ করেন দুই ওপেনার শাহরিয়ার নাফিস ও আজমির আহমেদ। অন্যরা খুব একটা সুবিধা করতে না পারলেও শারিয়ার নাফিস ১৫৬ বলে ১২১ রান করেন। তার ইনিংসে ছিল ১৩টি চার আর ৩টি ছয়। ঠিক তখনই শুরু হয় মাশরাফির জাদু। আবাহনীর হয়ে খেলা মাশরাফি এই ম্যাচে হ্যাটট্রিক করেন। ইনিংসের শেষ ওভারে পরপর চার বলে চারটি উইকেট তুলে নেন তিনি। ওভারের দ্বিতীয় বলে ধীমান ঘোষ, তৃতীয় বলে আব্দুর রাজ্জাক, চতুর্থ বলে শফিউল ইসলাম ও পঞ্চম বলে ফজলে রাব্বীকে সাজঘরে ফেরান তিনি। মাশরাফি বিন মুর্তজা ৯.৫ ওভার বল করে ৪৪ রান দিয়ে মোট ছয়টি উইকেট নেন।শেষ পর্যন্ত ৪৯.৫ বলে ২৭৯ রানে অলআউট হয় অগ্রণী ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব। ১১ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা আবাহনী লিমিটেড। তবে অনবদ্য সেঞ্চুরির জন্য ম্যাচ সেরা হন আবাহনীর নাজমুল হাসান শান্ত।