মসিক মেয়র আরো প্রায় ৫ হাজার কর্মহীনদের ঘরে ঘরে পৌঁছে দিলেন প্রধানমন্ত্রীর উপহার

স্টাফ রিপোর্টার

ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের (মসিক) জননন্দিত মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ইকরামুল হক টিটু’র ব্যাক্তিগত উদ্যোগে গত দুইদিনে প্রায় ৫ হাজার কর্মহীন মানুষের ঘরে ঘরে স্বেচ্ছাসেবকদের মাধ্যমে পৌছে দিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার সামগ্রী।

মঙ্গলবার দুপুরে অ্যাডভোকেট তারেক স্মৃতি অডিটোরিয়ামে বাংলাদেশ আওয়ামীগের বিভিন্ন সহযোগী সংগটনের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক, আহবায়ক-যুগ্ম-আহবায়কদের মাধ্যমে কর্মহীন মানুষের মাঝে ১ হাজার ৭৫০টি খাদ্য সমাগ্রীর প্যাকেট বিতরণ করেছেন। খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে ছিল চাল, ডাল, তেল, আলু, লবন। ময়মনসিংহ লকডাউনে থাকায় ময়মনসিংহ সিটি ও মহানগরে হাজার হাজার অসহায়, দিন মজুর, কর্মহীন, দিন এনে দিন খাওয়া মানুষদের পাশে সামান্য সহযোগীতার প্রয়াস হিসাবে দলীয় নেতাকার্মীদের মাধ্যমে মেয়র টিটু এই খাদ্য সহায়তা বিতরণ করেন।

জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট এবিএম নুরুজ্জামান খোকনের পরিচালনায় এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক শাহরিয়ার মোঃ রাহাত খান ও শাহ শওকত ওসমান লিটন, মহানগর যুবলীগের শাহিনুর রহমান শাহিন, জেলা কৃষকলীগের সভাপতি আব্দর রহিম মিন্টু ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা বাবুল (ভিপি বাবুল), মহানগর কৃষকলীগের আবু বকর সিদ্দিক ও সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম রায়হান, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক মোফাখখার হোসেন খোকন, মহানগর মহিলা আওয়ামীলীগের অ্যাডভোকেট প্রীতি, ময়মনসিংহ প্রেসকাবের সাধারণ সম্পাদক অমিত রায়, ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোঃ নজরুর ইসলাম, চেম্বার অব কমার্সের সিনিয়র সহ সভাপতি শংকর সাহা প্রমূখ।

এরআগে সোমবার মুকুল নিকেতন উচ্চ বিদ্যালয়ে স্বেচ্ছাসেবকদের সমন্বয়ে গঠিত একাধিক কমিটির মাধ্যমে নগরীর নরসুন্দর, ডেকোরেটর কর্মচারি, হোটেল রেস্তোরার কর্মচারি, ভ্রাম্যমান চটপটি বিক্রেতা, চা-দোকানীসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার কর্মহীন অসহায় দুই হাজার ৯ শত লোকদের ঘরে ঘরে পৌছে দিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার সামগ্রী।
করোনা ভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কার মানুষ যখন অজানা আশঙ্কায় নিমজ্জিত, দেশের অধিকাংশ জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতা যখন স্বেচ্ছায় লকডাউনে গৃহকোণে আবদ্ধ, তখন ঠিক তখনই আক্রান্তের ঝুঁকি মাথায় নিয়ে সামাজিক (শারীরিক) দূরত্ব বজায় রেখে ক্ষুধার্থ কর্মহীন অসহায় মানুষগুলোর মূখে দুমুঠো অন্নের যোগান দিতে রাত-দিন ছুটে বেড়াচ্ছেন ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের (মসিক) জননন্দিত মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ইকরামুল হক টিটু। কখনো তিনি নিজে এবং কখনো মসিক কর্মচারী ও তার কর্মীদের মাধ্যমে পৌছে দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার সামগ্রী।
মেয়র ইকরামুল হক টিটু জানান, ময়মনসিংহ জেলা যুবলীগ, মহানগর যুবলীগ, জেলা কৃষকলীগ, মহানগর কৃষকলীগ, মহানগর মহিলালীগ, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ, মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগ, জেলা শ্রমিকলীগ, জেলা মৎস্যজীবী লীগ বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর, জেলা ও মহানগর তাতীঁলীগসহ মহানগরে বসবাসরত আওয়ামীলীগের সকল সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দের মাধ্যমে এক হাজার ৭ শত অসহায়ের মাঝে এই খাদ্য সহায়তা বিতরণ করা হয়। সরকারি নির্দেশনা মতে, সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে সুষ্ঠু পরিবেশে এই খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

মেয়র টিটু বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে তার দেয়া উপহার সামগ্রী সিটি কর্পোরেশনের পরিষদ সদস্যদের নিয়ে নগরীর অসহায় মানুষদের মাঝে নিয়মিত খাদ্য সহায়তা পৌছে দিয়ে আসছেন। কখনো ক্যাম্প করে আবার কখনো রাতব্যাপী নিজস্ব যানবাহনযোগে এই খাদ্য সহায়তা অসহায়দের ঘরে ঘরে পৌছে দিচ্ছেন।

মেয়র আরো বলেন, শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী সিটি কর্পোরেশন ও ব্যক্তিগত উদ্যোগে তিনি কর্মহীন দিনমজুর, অসহায়, বয়োবৃদ্ধ, কর্মহীন, প্রতিবন্ধী ও নতুন করে বেকার হয়ে পড়াদের ঘরে ঘরে খাদ্য সামগী পৌঁছে দেওয়ার কার্যক্রম চলমান রয়েছে। যেসকল ব্যক্তি এই দুর্যোগকালীন সময়ে সহযোগিতা পাওয়ার যোগ্য আন্তরিকভাবে চেষ্টা করছি তাদের ঘরে সহায়তা পৌছে দিতে। প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছেন, দেশের একজন মানুষও অনাহারে কিংবা না খেয়ে থাকবেনা। মানবিক দৃষ্টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী এই উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর এই উদ্যোগ অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। এই মহাদুর্যোগতালীন সময়ে ঘরে ঘরে খাদ্য সহায়তার উদ্যোগ নিয়ে মহানুভবতার পরিচয় দিয়েছেন। যা সারা পৃথিবীর অন্য কোন দেশ বা সরকার প্রধান এই নজির স্থাপন করতে পারেনি।

তিনি আরো বলেন, ময়মনসিংহ সিটির একজন মানুষও না খেয়ে থাকবেনা। এই খাদ্য সহায়তা কোন প্রাপ্য নয়। এই খাদ্য হলো প্রধানমন্ত্রীর মানবতা আর সহযোগীতা। প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে যে সহায়তা আসবে আপনারা ঘরে বসেই তা পাবেন। তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, প্রকৃত অসহায়রা যাতে এই খাদ্য সহায়তা থেকে বঞ্চিত না হন তা নিশ্চিত করতে হবে। অত্যন্ত সতর্কতার সাথে এই খাদ্য বিতরণ করতে হবে। মনে রাখবেন দলীয় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ যেন না আসে। নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি আরো বলেন, খাদ্য সহায়তা সঠিক মানুষের মাঝে পৌছানোর পাশাপাশি মানুষজনকে ঘরে থাকা নিশ্চিত করতে আরো দায়িত্বশীল হতে হবে। আপনারা এই সকল অসহায় মানুষদেরকে বলবেন, আপনারা নিজ ঘরে থাকুন। খাদ্য সহায়তার জন্য অযথা কেউ দৌড়ঝাপ কিংবা কাজ ছাড়া কেউ ঘোরাফেরা করবেন না। নিজেরা ঘরে থাকুন, নিজের পরিবার এবং দেশের মানুষকে হুমকির মুখে ঠেলে দেবেন না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অসহায় মানুষদের পাশে আছে। কেউ খাদ্যের জন্য না খেয়ে থাকবেন না। প্রধানমন্ত্রী নিজেই আপনাদের খাবারের দায়িত্ব নিয়েছেন। আপনারা ঘরে থাকুন, সিটি কর্পোরেশন এবং আমরা আপনাদের ঘরে খাবার পৌছে দিব। প্রধানমন্ত্রীর এই উদ্যোগকে সহযোগিতার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানিয়ে মেয়র ইকরামূল হক টিটু সবশেষে বলেন, জেলা আওয়ামীীগের সভাপতি এডভোকেট জহিরুল হক, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল ও মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি এহতেশামূল আলমসহ নেতৃবৃন্দের সাথে পরামর্শক্রমে তিনি মহানগরের সকলস্তরে এই দুর্যোগকালীন সময়ে খাদ্য সহায়তা মানুষের ঘরে ঘরে পৌছে দিতে চেষ্টা করছেন।

পরে মেয়র টিটু পৃথক যানবাহনে করে বিভিন্ন স্থানে এই খাদ্য সহায়তা পৌছে দেন। সংগঠনের নেতৃবৃন্দ জানান, জানান, আগে থেকেই তারা নিজ নিজ এলাকার অসহায়দের তালিকা তৈরী করেছেন। ঐ তালিকা অনুযায়ী সকলের ঘরে ঘরে মেয়রের এই খাদ্য সহায়তা পৌছে দেয়া হবে।