হোসেনপুরে কুড়িয়ে পাওয়া তাছলিমার বিয়েতে পাঁচ হাজার মেহমান

স্টাফ রিপোর্টার
হোসেনপুরে কুড়িয়ে পাওয়ার ১৮ বছর পর অন্যরকম আয়োজনে তাছলিমা আক্তারের বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার (১৬ নভেম্বর) উপজেলার উত্তর পানান গ্রামবাসী এই বিয়ে অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। নিমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ বিয়ে অনুষ্ঠানে অংশ নেন। স্থানীয়রা জানান, ১৮ বছর আগে উত্তর পানান গ্রামের মইছ উদ্দিনের ধান েেত এক বছরের একটি কন্যা শিশু পাওয়া যায়। মানবতার কথা চিন্তা করে গ্রামবাসী এই বেওয়ারিশ শিশুর লালন পালনের দায়িত্ব দেন গ্রামের মো. মইছ উদ্দিন ও তার স্ত্রী রহিমা খাতুনকে। শিশুটির নাম রাখা হয় তাছলিমা আক্তার। ১৮ বছর পর গ্রামবাসী তাছলিমা আক্তারের বিয়ের আয়োজন করেন। বর একই গ্রামের সাত্তারের দ্বিতীয় পুত্র সাজন মিয়া। শুক্রবার (১৬ নভেম্বর) তাছলিমা-সাজনের বিয়ে অনুষ্ঠানে এলাকাবাসীর উদ্যোগে পাঁচ হাজার মানুষকে নিমন্ত্রণ জানানো হয়। তাছলিমার লালন পালনকারী অভিভাবক মইছ উদ্দিন জানান, মেয়ের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে স্থানীয় সৎ ও কর্মম বরের কাছে তাকে পাত্রস্থ করা হয়েছে। গোবিন্দপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান বদিউল আলম মতি, আবুল কালাম, আফজালুর রহমান উজ্জ্বল, শরীফুল আলম শাহীন, আরিফুল আলম, আবুল কাসেম, লাল মিয়া, শহীদুল ইসলাম প্রমুখ বিয়ে অনুষ্ঠান ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পালন করেন। এতে বিশেষ মেহমান হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, হোসেনপুর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা আক্তার, অধ্য মোসলেহ উদ্দিন খান, সাবেক যুবলীগ সভাপতি এমএ হালিম, উপাধ্য লুৎফর রহমান মানিক, অ্যাডভোকেট সাইদুর রহমান, গোলাম মোস্তফা কাঞ্চন প্রমুখ।